কুরআন ও হাদীস পাঠ articles

মা-বাবার প্রতি কর্তব্য

পিতা-মাতার সঙ্গে সন্তানের সম্পর্ক; কুরআন-সুন্নাহর নির্দেশনা

পিতা-মাতার সঙ্গে সন্তানের সম্পর্ক; কুরআন-সুন্নাহর নির্দেশনা

পিতা-মাতার সঙ্গে সন্তানের সম্পর্ক; কুরআন-সুন্নাহর নির্দেশনা   বাবা-মার সঙ্গে সন্তানের সুসম্পর্ক নিয়ে কুরআন এবং হাদিসে অনেক নির্দেশ ও নসিহত রয়েছে। কুরআনের এসব নির্দেশ ও হাদিসের নসিহত সন্তানের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তাওহিদের দায়িত্ব পালনের পরপরই বাবা-মার খেদমতের আহ্বান করা হয়েছে কুরআনে। হাদিসে পাকে প্রিয় নবি বাবা-মাকে জান্নাতের সঙ্গে তুলনা করেছেন। যারা বাবা-মার খেদমত করে তাদের সন্তুষ্টি

সুরা ফাতিহার ধারাবাহিক তাফসীর-৯

সুরা ফাতিহার ধারাবাহিক তাফসীর-৯

সুরা ফাতিহার ধারাবাহিক তাফসীর-৯ মুফতি আব্দুর রহমান গিলমান ‘তাদের পথ নয়, যারা অভিশপ্ত এবং যারা পথভ্রষ্ট’ সুরা ফাতিহার সপ্তম আয়াতটি পূর্ববর্তী আয়াত ‘আন’আমতা আলাইহিম’-এর ব্যাখ্যাবোধক। অর্থাৎ যাঁদেরকে আল্লাহ তা’আলা তাঁর করুণা দানে ধন্য করেছেন, তারাই আল্লাহ’র গজব ও পথভ্রষ্টতা থেকে মুক্ত বা সুরক্ষিত। এই দুটি আয়াতে মানুষের তিনটি দলের প্রতি ইঙ্গিত করা হয়েছে। জীবন চলার

সুরা ফাতিহার ধারাবাহিক তাফসীর-৮

সুরা ফাতিহার ধারাবাহিক তাফসীর-৮

সুরা ফাতিহার ধারাবাহিক তাফসীর-৮ (আয়াত-৬) মুফতি আব্দুর রহমান গিলমান “যারা আপনার অনুগ্রহ লাভ করেছে তাঁদের পথ” “সিরাতাল্লাযিনা আন‘আমতা আলাইহিম” অর্থাৎ তাঁদের পথ যারা আপনার নি‘আমত বা অনুগ্রহ লাভ করেছে। এ আয়াতটি পূর্বের আয়াত “ইহদিনাস সিরাতাল মুসতাকিম”-এর ব্যাখ্যা। যারা আপনার অনুগ্রহ বা দয়া পেয়েছে তাঁদের পথই সোজা-সরল রাস্তা। এতে করে এ কথাটিও প্রমাণিত হয়েছে যে, ঐ

সুরা ফাতিহার ধারাবাহিক তাফসীর-৬

সুরা ফাতিহার ধারাবাহিক তাফসীর-৬

সুরা ফাতিহার ধারাবাহিক তাফসীর-৬ মুফতি আব্দুর রহমান গিলমান “আমরা একমাত্র তোমারই ইবাদত করি এবং তোমারই কাছে সাহায্য প্রার্থনা করি।” (আয়াত-৪) সুরা ফাতিহার চতুর্থ আয়াতটি হলÑ “ইয়্যাকা না‘বুদু ওয়া ইয়্যাকানাস্তাঈন”। অর্থাৎ আমরা শুধু তোমারই উপাসনা করি এবং একমাত্র তোমার কাছ থেকে সাহায্য চাই। পূর্বের আয়াতগুলোয় আমরা আল্লাহর কিছু গুণ সম্পর্কে জানতে পেরেছি। আমরা জেনেছি যে তিনি

সুরা ফাতিহার ধারাবাহিক তাফসির-৫

সুরা ফাতিহার ধারাবাহিক তাফসির-৫

সুরা ফাতিহার ধারাবাহিক তাফসির-৫ মুফতি আব্দুর রহমান গিলমান “প্রতিদান দিবসের মালিক” সুরায়ে ফাতেহার তৃতীয় আয়াত হচ্ছে- ‘মা-লিকি ইয়াওমিদ্দীন’। অর্থাৎ ‘প্রতিদান দিবসের মালিক।’ মা-লিক শব্দটি এখানে মীম-এ আলিফ দিয়ে পড়া হয়েছে। কোনো কোনো কিরাআতে আলিফ ব্যতীতও পড়া হয়েছে। মুফাসসিরীনে কিরাম দুয়ের মাঝে পার্থক্য নির্ণয় করেছেন এভাবে, ‘মালিক’ (আলিফ ব্যতীত) বলতে বুঝায় যিনি তার প্রজা ও অনুগতদের

Top